মীম সুন্দরীর কিসসা…

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

শাপলা-শালুক ফোটা বিল। টলমল টলমল করে বাংলা মায়ের মায়াময় জল। জল এতই স্বচ্ছ যে, নীলাভ তার রঙ উঁকি দেয়। খলবল করে। আর সেই নীলাভ জলে, স্নান করে যে পরী, তার নাম রেবু। কিম্বা রেবেকা। প্রতিদিন রেবু সেই পদ্ম-ফোটা জলে, স্নান করে। একদিন হুট করে, সেই স্নান দৃশ্য আমরা দেখি ফেলি। আমরা তখন মোহগ্রস্ত। আমরা তখন বেভুল। আমরা তখন চন্দ্রে পাওয়া একদল তরুণ। অপার্থিব এই দৃশ্য দেখে, নিজেদের অবিশ্বাস করি। ভাবি, স্বপ্ন নয়তো! নিজেদের গায়ে চিমটি কাটি। ব্যথা পেলে, বুঝতে পারি, না, স্বপ্ন নয়; স্বপ্নেরও অধিক কোনো বাস্তবতা এসে হাজির হয়েছে এবার। আমরা তখন, রেবুর নামে, কবিতা লিখি। পোস্টার সেঁটে দেই দেয়ালে দেয়ালে। মহল্লায়!

…স্বপ্ন নয়;
স্বপ্নেরও অধিক কোনো
বাস্তবতা এসে
হাজির হয়েছে
এবার…

কিন্তু, এই অধিবাস্তবতার রেবুর সাথে, মহল্লার ময়-মুরুব্বী ও খালাম্মারা কাউরে মিলাইতে পারে না বলে, তারা অদেখা রেবুর জীবনীকার বা দেয়াল-লেখকদের উদ্দ্যেশ্যে শাপ-শাপান্ত করে। তারা ভাবে, কে এই রেবু? কিম্বা রেবেকা? কোথায়-ই বা পদ্ম-ফোটা নীলাভ জল, টলমল করা বিল? কোথায়, মুক্সেদপুর, নাটোর? নাকি বহদ্দারহাট পাড় হয়ে, হালদা নদীর ব্রীজ ছাড়িয়ে ঘন্টা খানেক গেলে, চুপটি মেরে থাকা ইছাপুর?

আসলে, আমরা তখন, মোল্লাপাড়ায়, খোদাবক্স গলির বা কোণের মান্নান মামার চায়ের দোকানে বসে, আড্ডা পিটাই। বিড়ি ফুঁকি। শহরের কোথায় যেতে ইচ্ছা করে না আমাদের! ভাবি যে, যে শহরের ১০ মিনিটের পথ পেরুতে ৩ ঘণ্টা লাগে, সেই শহরে আমরা কোথাও যাব না! খেলাঘর যুবসঙ্ঘের এই টিনের চালার ঘরে, বইসা থাইকা থাইকা, কিম্বা পাকে-চক্রে, পার্টিসূত্রে যদি কিছু চাঁদা-ফাদার ভাগ খাওন যায়, তাইলেই সই?

তখন আমাদের এক বন্ধু বলে যে, গ্রামের পোলাপাইন শহরের দখল লয়া ফেলাইতেছে! আমরা যারা শহরে জন্মাইছি, তাগুর পড়াশোনা নাই, ট্রাই নাই!

আমরা তখন বন্ধুর কথায় কিঞ্চিৎ বিষণ্ণ হই। পর মুহূর্তেই, রেবেকা বা রেবুর কথা বলে কেউ। আমাদের তখন ভাল্লাগা শুরু করে। কোথা থাইকা যেন, ঝিরঝির বাতাস বইতে শুরু করে। আমরা দেখতে থাকি, পদ্ম-ফোটা বিল, খলবল করতে থাকা, নীল জল। আর সেই জল থেকে উঠে আসতে থাকা রেবেকা বা রেবু!

আমরা জানি, এই রেবু কোনোদিন আমাদের হবে না। তবু, রেবেকা কিংবা রেবুর কথা ভাবতে ভাল্লাগে। ভাল্লাগতে থাকে…

০২

টিভিসিটার নির্মাতা সাবরিনা আইরিন। এজেন্সি এশিয়াটিক জেডব্লিউটি। সিনেমাটোগ্রাফি করেছেন মোরশেদ বিপুল। কপিরাইটার হলেন, ইপন শামসুল আলম। ক্রিয়েটিভ ম্যানেজার পুলক অনীল। সাউন্ড ডিজাইন করেছেন খ্যাতনামা রিপন নাথ।

অসাধারণ এই বিজ্ঞাপনটির জন্য স্যালুট সবাইকে। দর্শক হিসাবে আমরা বিহবল হয়েছি।

টিভিসির ডিরেক্টর সাবরিনা অাইরিন

Share.

About Author

টিম ওয়াটারমেলন

। ক্রেজি, ক্র্যাকড ও ক্রিয়েটিভ একদল তরুণের গ্যারেজ।

Leave A Reply

error: Content is protected !!