রঙের সাইকোলজি

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

কোনোকিছু কেনার জন্য আপনি হয়তবা সুপারমলে বা মুদি দোকানে গেলেন। গিয়ে দেখেন যে, থরে থরে সাজানো প্রোডাক্ট। খেয়াল করবেন, ওই মুহূর্তে প্রোডাক্টের প্যাকেজিং আপনার সাথে পহেলা এক ধরনের আই কনটাক্ট করে নিচ্ছে। পরিসংখ্যান বলছে,  ৯০ শতাংশেরও বেশি ক্রেতা,  প্যাকেজিং  দেখে প্রোডাক্ট সম্পর্কে তার নিজের একটা ধারনা তৈরি করে নেয়।  অথবা অন্যভাবে বলা যায়, আপনি যখন কোনোকিছু কেনার জন্যে দোকানে যান, তখন প্যাকেজিংয়ের রঙ, আপনার মনোজগতে এক ধরনের প্রতিক্রিয়া তৈরি করে। দেখা যায়, যে প্যাকেজিংয়ের রঙ যত তীব্র, সেটি তত আকর্ষণ তৈরি করছে। রঙের বাহাদুরীর এই গল্প ডিজাইনার জানে, মার্কেটার জানে, এজেন্সি জানে। প্রোডাক্টের ধরনও কিন্তু নিজে নিজে রঙ ডিজার্ভ করে। আবার ডিজাইনের ক্ষেত্রে আর্টিস্টিক বিষয়টাও প্রাধান্য পায়। এইসব বিবেচনার পর, আসুন এবার দেখে নেই, রঙের সাইকোলজি :

 লাল 

  • ফুড মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে সবচে বড় মস্তানের নাম রঙ। মানে এর প্যাকেজিংয়ের ডিজাইন রঙ আরকি! আর তাবৎ দুনিয়ার খাদ্য দ্রব্যের ক্ষেত্রে, লালের রয়েছে একচ্ছত্র আধিপত্য।
  • লাল খুব চোখ টানে। মানে দেখিবামাত্র আকর্ষণ তৈরি করে।
  • মনোজগতে প্রতিক্রিয়া তৈরি করে। চাগিদা তীব্র করে তুলে।

হলুদ

  • এই রঙ আশাবাদ ও ফুরফুরে অনুভূতি তৈরি করে।
  • হলুদ চোখে পড়লে, ব্রেন থেকে সিরোটনিন নিঃসৃত হয়।

সবুজ

  • সুস্বাস্থ্য ও সুখময় জীবনের সমার্থক এই রঙ।
  • প্রাকৃতিক যে কোনো খাদ্যের জন্য সবুজ রঙ ভালো।

কমলা

  • মজাদার ও তৃপ্তিকর খাবারের প্যাকেজিংয়ে এই রঙ ব্যবহার করা যেতে পারে।

নীল

  • নাস্তা ও বিস্কুটের প্যাকেজিংয়ে এই রঙ কার্যকরী!
  • শিশুদের খাবার প্রোডাক্টে এই রঙ ব্যবহার করতে দেখা যায়।
  • প্রাকৃতিক খাদ্যের প্যাকেজিংয়ে এই রঙ ব্যবহার না করাই ভালো।

    সংযুক্তি
    http://www.packaginginnovation.com

 

Share.

About Author

টিম ওয়াটারমেলন

। ক্রেজি, ক্র্যাকড ও ক্রিয়েটিভ একদল তরুণের গ্যারেজ।

Leave A Reply

error: Content is protected !!